দখলমুক্ত করার দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

খেলার মাঠে টিনের ঘর!

মাসুক হৃদয় | ১২ জুলাই ২০২০ | ৮:০৯ অপরাহ্ণ
অ+ অ-
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর সদর ইউনিয়নের নাসিরপুর গ্রামের খেলার মাঠটি এখন বর্ষার পানিতে টইটুম্বুর। এই মাঠের জায়গা দখলে নিতে কোমর সমান পানিতেই দোচালা টিনের ঘর তুলেছেন স্থানীয় এক প্রভাবশালী চক্র। 
এই ঘর উচ্ছেদ করে মাঠটি দখলমুক্ত করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকবাসী।
রোববার দুপুরে নাসিরনগর উপজেলা সদরের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার সংলগ্ন সড়কে গ্রামবাসীরা এ মানববন্ধন করেন। ওই গ্রামের ভূমিদস্যু চক্রের কবল থেকে মাঠটি দখলমুক্ত করতে তারা এ কর্মসূচি পালন করেন।
মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নাসিরপুর গ্রামের বাসিন্দা বিপ্লব ভট্টাচার্য, পান্ডব চন্দ্র বিশ্বাস, আবু তাহের ও আকতার হোসেন।
বক্তারা বলেন, প্রায় একশ বছর আগে ওই গ্রামের প্রয়াত পূর্ণ চন্দ্র ভট্টাচার্যের মালিকানাধীন তিন একর পরিমাণ জায়গা গোচারণভূমি হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছিল। পরে জায়গাটি গ্রামের যুবকরা খেলাধুলার মাঠ হিসেবে ব্যবহার করে। গত ২০১৮ সালে জায়গাটির একাংশ বিক্রির পাঁয়তারা করে একই গ্রামের ভূমি দস্যু হিসেবে পরিচিত ইছা মিয়া। সেসময় গ্রামবাসীর প্রতিবাদের মুখে তার চেষ্টা ব্যর্থ হয়।
সম্প্রতি ইছা মিয়ার যোগসাজশে একই গ্রামের বাসিন্দা ও নাসিরনগর সরকারি কলেজের কর্মচারি সৈয়দ নজরুল ইসলাম জায়গাটির উত্তরাংশ ক্রয়সূত্রে মালিক দাবি করে স্থানীয় ইদন মিয়ার কাছে মৌখিকভাবে বিক্রি করে। এরপর গত ১০ জুলাই সেখানে একটি দোচালা টিনের ঘর তুলে ইছা, নজরুল ও ইদন চক্র।
তারা আরো বলেন, তিন বছর আগে দখল চেষ্টার সময় গ্রামবাসীর করা লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতে তৎকালীন ইউএনও স্থানীয় তহশিলদারকে সরেজিমন তদন্ত করেতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেসময় ওই কর্মকর্তা এটিকে খেলার মাঠ হিসেবে উল্লেখ করে প্রতিবেদন দেন। কিন্তু এতেও ওই ভূমি দস্যু চক্রের কবল থেকে মাঠটি উদ্ধার করা যায়নি। তারা অবিলম্বে বৃহৎ জনগোষ্ঠীর স্বার্থে মাঠটি দখলমুক্ত করার দাবি জানান।
মানববন্ধ শেষে এলাকাবাসী নাসিরনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছ স্মারকলিপি দেন।
নাসিরগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাজমা আশরাফী বলেন, গ্রামবাসীরা স্মারকলিপির কপি সহকারি কমিশনারের (ভূমি) কাছে জমা দিয়েছেন। জায়গাটির কাগজপত্র যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।
এদিকে এ বিষয়ে মুঠোফোনে অভিযুক্ত ইছা মিয়ার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি জায়গা দখলে জড়িত নন দাবি করে বলেন, ‘নাসিরনগর উপজেলা চেয়ারম্যানের মেয়ের জামাতার উপস্থিতিতে নাসিরপুরের নজরুল ইসলাম একই গ্রামের ইদন মিয়ার কাছে জায়গাটি বিক্রি করেন। এর সঙ্গে আমি সংশ্লিষ্ট নই’।

Facebook Comments

পড়া হয়েছে 1048 বার
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
x